অরাজ
আর্টওয়ার্ক: একজিকিউটিং দ্য ওয়ার্কার্স শিল্পী: মোহাম্মদ আফেফা সূত্র: কার্টুন মুভমেন্ট
প্রচ্ছদ » নোয়াম চমস্কি।। করোনা, বর্বর পুঁজিবাদ ও কর্তৃত্ববাদী অক্ষ

নোয়াম চমস্কি।। করোনা, বর্বর পুঁজিবাদ ও কর্তৃত্ববাদী অক্ষ

অনুবাদ: জাকির হোসেন

কয়েক দশক ধরে নোয়াম চমস্কি বৈশ্বিক ক্ষমতা কাঠামো, নয়া উদারবাদী অর্থনীতি এবং কর্তৃত্বপরায়ণতার বিরুদ্ধে  প্রবল স্বর হিসেবে হাজির হয়েছেন। বুদ্ধিবৃত্তিক মহলেও  একজন পুরোধা ব্যক্তিত্ব হিসেবে স্বীকৃত হয়ে আসছেন। তার বিভিন্ন গ্রন্থ এবং বক্তৃতা আমাদের বুঝতে সাহায্য করে, কিভাবে ধনকুবের এবং কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলো পৃথিবীকে অসীম যুদ্ধ এবং জলবায়ু পরিবর্তনের মতো ভয়াবহ দুর্যোগের দিকে পরিচালিত করছে। বর্তমান সাক্ষাকারটিও তার ব্যতিক্রম নয়। Labor Notes কে দেয়া সাক্ষাতকারেও বর্তমান করোনা সংকটের মূহুর্তে কিভাবে ধনকুবের এবং কর্পোরেট প্রতিষ্ঠানগুলোর নেওয়া স্বার্থপর, অসভ্য নীতিগুলো শুধু তাদেরই স্বার্থ উদ্ধার করে এবং বাকিদের ক্ষতিগ্রস্ত করার মাধ্যমে পরিস্থিতিকে আরো খারাপের দিকে নিয়ে যাচ্ছে তা আলোচনা করেছেন।

১০ই এপ্রিল Labor Notes স্টাফ রাইটার ক্রিস ব্রুকস অধ্যাপক চমস্কির এই সাক্ষাৎকার গ্রহণ করেন। সেখানে তার কাছে জানতে চাওয়া হয়, আমরা কিভাবে এই পরিস্থিতির মুখোমুখি হলাম এবং এই সংকট কিভাবে কাটিয়ে ওঠা যায়।

নোয়াম চমস্কি

আমার সাথে যোগ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ, অধ্যাপক চমস্কি! আমি জানি যে আপনি সবসময় বিভিন্ন জায়গা থেকে অনবরত সাক্ষাৎকারের অনুরোধ পেয়ে থাকেন তাই  আপনার মূল্যবান সময় দেওয়ার জন্য লেবার নোটসের পক্ষ থেকে অসংখ্য ধন্যবাদ জানাই

চমস্কি: আমি আনন্দিত।

আমরা বর্তমানে যে অভূতপূর্ব মূহুর্তে অবস্থান করছি, সে বিষয়ে সাধারণভাবে আপনার চিন্তা সম্পর্কে জানতে চাইব এই মূহুর্তে আমরা খুব স্পষ্টতই একদিকে একটি বৈশ্বিক মহামারি এবং অপরদিকে একটি বৈশ্বিক মন্দার মাঝামাঝি অবস্থান করছি যুক্তরাষ্ট্রের বহু মানুষ নিজেকে বেকার এবং অরক্ষিত অবস্থায় আবিষ্কার করছে আমাদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বর্তমানে নাকানিচুবানি খাচ্ছে হাসপাতালের আসন থেকে শুরু করে প্রয়োজনীয় ভেন্টিলেটর এবং ব্যক্তিগত সুরক্ষা সামগ্রীর অপর্যাপ্ত যোগান আমাদেরকে ভোগাচ্ছে আমি জানি যে, আমরা আমাদের বরাদ্দকৃত পুরো আধা ঘন্টা সময় শুধুমাত্র এই আলোচনাতেই শেষ করে ফেলতে পারব কিন্তু আমার সবিনয় অনুরোধ, আপনি আমাদের বর্তমান পরিস্থিতিকে বোঝার জন্য এবং কোন কোন রাজনৈতিক পদক্ষেপ আমাদের এই মূহুর্তে এনে দাঁড় করিয়েছে, সে সম্পর্কে একটি সংক্ষিপ্ত ঠিকুজি তুলে ধরবেন

চমস্কি: প্রথমত, আমাদের এটা অনুধাবন করার প্রয়োজন, আমরা যদি এই মহামারির মূল কারণ উদঘাটন করতে না পারি, তাহলে পরের বার এটা আরো বাজেভাবে ফিরে আসবে। পুঁজিবাদী ব্যবস্থা নিজস্ব সুবিধা হাসিল করার মাধ্যমে এমন কিছু পরিস্থিতি সৃষ্টি করার চেষ্টা করছে।  প্রণোদনা বিল এবং অন্যান্য বিষয়গুলো খেয়াল করলেই বিষয়টি বুঝতে পারবেন।

এখন, দ্বিতীয়ত, চলমান বৈশ্বিক উষ্ণায়ন আমাদের সবধরনের সাময়িক সংকটকে ছাপিয়ে যাচ্ছে। আমরা বর্তমান সংকট থেকে মারাত্মক মূল্য দিয়ে হলেও উদ্ধার পাব। কিন্তু মেরু অঞ্চলের বরফ গলা তাতে থামবে না। এখন সমসাময়িক পুঁজিবাদ বিষয়টিকে কিভাবে দেখছে তা বুঝতে চাইলে আপনাকে ট্রাম্পের বাজেটের দিকে নজর দিতে হবে। তবে এটাও সত্য যে, এটা সাধারণ পুঁজিবাদী ব্যবস্থার অস্বাভাবিক রকমের চরমপন্থী সংস্করণ। হয়তো একে উদাহরণ হিসেবে নেওয়াটাও ঠিক হবে না। কিন্তু আমাদেরকে এর সাথেই বসবাস করতে হচ্ছে।

১০ই ফেব্রুয়ারি এই মহামারি যখন খারাপের দিকে যাচ্ছে, ট্রাম্প তখন তার বাজেটের প্রস্তাবনা নিয়ে হাজির হলেন। সেগুলো কী ছিল? সরকারের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত খাতগুলোতে বরাদ্দ হ্রাস জারি রাখা। ক্ষমতার পুরো মেয়াদকাল জুড়ে তিনি ব্যক্তিগত ও কর্পোরেট ক্ষমতা এবং সম্পদের উপকারে আসে না এমন সকল খাতেই বরাদ্দ কমিয়েছেন। অতএব, সরকারের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত খাতগুলোতে ক্রমাগত বরাদ্দ কমতে থাকল। এ সংক্রান্ত বিভিন্ন কর্মসূচীকে তিনি ধ্বংস করলেন।

আর্টওয়ার্ক: হেলথ সিস্টেম
শিল্পী: ভাস্কো গারগ্যালো
সিূত্র: কার্টুন মুভমেন্ট

রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র এবং সরকারের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত সবগুলো খাতে বাজেট কমানো অব্যাহত থাকল। অন্যদিকে, বাজেটে জীবাশ্ম জ্বালানি-নির্ভর শিল্পগুলোতে ক্ষতিপূরণ এবং ভর্তুকির পরিমাণও বাড়তে থাকল। অর্থাৎ যত মানুষকে সম্ভব হত্যা করাই শুধু নয়, পুরো সমাজকেই ধ্বংস করে দেওয়ার তোড়জোড় চলছে। উপরোক্ত বিষয়গুলোর অর্থ মূলত তেমনটাই দাঁড়ায়। তাছাড়া সেনাবাহিনী এবং তার বিখ্যাত দেয়ালের জন্য বরাদ্দ তো থাকছেই।

উপরোক্ত দুটি জিনিস খুব উজ্জ্বলভাবে যে নৃশংসতাকে নির্দেশ করে, সেটিই হলো সকল রোগ বালাইয়ের গোড়ার কথা। সোশিওপ্যাথিক হোয়াইট হাউজে এটি বহুল চর্চিত হয়েছে। তবে সকল কুকীর্তির জন্য ট্রাম্পকে অবশ্য এককভাবে দায়ী করা ঠিক হবে না। এর আকর খুঁজততে হলে পেছনপ তাকাতে হবে এবং আমাদেরকে গভীরে ভাবতে হবে।

২০০৩ সালের সার্স মহামারির পর বিজ্ঞানীরা ভালোভাবেই বুঝতে পেরেছিলেন যে, করোনা ভাইরাসেরই অন্য কোনো প্রকরণ সম্ভবত আরো ভয়াবহ কোনো মহামারি নিয়ে আসছে। যাই হোক, বোঝাটাই যথেষ্ট ছিল না। কাউকে না কাউকে কাজে নেমে পড়তে হতো। এখন দুই ধরনের সম্ভাবনা আমরা দেখতে পাই। এক হলো ঔষধ কোম্পানীগুলো। তারা খুব সাধারণ একটি পুঁজিবাদী যুক্তি মেনে চলে। আপনি তা-ই করবেন, যা কাল আপনাকে মুনাফা এনে দেবে। কয়েক বছর পর যে সবকিছু ভেঙে পড়বে, সে ব্যাপারে আপনার কোনো মাথাব্যথা নেই। এটা আপনার সমস্যা নয়। সুতরাং ঔষধ কোম্পানিগুলো আসলে কিছুই করেনি। বেশ কিছু কাজ করে ফেলা যেত। প্রচুর পরিমাণে তথ্য আদান-প্রদান হচ্ছিল। বিজ্ঞানীরা জানতেন কি করতে হবে। এই মহামারির পূর্বপ্রস্তুতি নেওয়া যেত। কাউকে না কাউকে এর জন্য অর্থের জোগান দিতে হতো। ঔষধ কোম্পানিগুলো নিশ্চয় তা করত না। যাই হোক, যৌক্তিক পৃথিবীতে, এমনকি রোনাল্ড রিগ্যানের পূর্ববর্তী পুঁজিবাদী পৃথিবীতেও সরকার এই কাজে এগিয়ে আসত এবং প্রয়োজনীয় কাজটি সম্পাদন করত।

ঠিক এভাবেই সরকারি পদক্ষেপে এবং অর্থায়নে পোলিও নির্মূল করা হয়েছিল। জোনাস সক যখন এর প্রতিষেধক আবিষ্কার করেন, তিনি জোর দিয়ে বলেছিলেন, এর কোনো বিশেষ স্বত্ত্ব থাকবে না। তিনি বলেছিলেন, ‘এটি হবে সূর্যের আলোর মতোই উন্মুক্ত’। তারপরেও এটি পুঁজিবাদ। তবে এটি সুশৃঙ্খল পুঁজিবাদ। এর সমাপ্তি হয় রোনাল্ড রিগ্যানের একটি অভিঘাতে। ভাবনাটা এমন যে, সরকার নিজেই সমস্যা, সমস্যার সমাধান নয়। কর রেয়াতের জন্য স্বর্গভূমি প্রতিষ্ঠাকে বৈধতা দেওয়া হোক। স্টক মার্কেটে শেয়ার পুনক্রয়  বৈধতা দেওয়া হোক। তাতে জনগণের দশেরও অধিক ট্রিলিয়ন ডলার অর্থ ব্যয় হয় যা কিনা নিছক ডাকাতি।

বেসরকারি খাত ঝামেলায় পড়লে সরকারই সমস্যার সমাধান, এতে তা অবশ্য বোঝা গেল। কিন্তু যখন জনগণের কিছুর দরকার হয়, তখন সরকার কোনো দায়িত্ব নিতে পারবে না। সুতরাং ২০০৩ সালে ফিরে গেলে দেখা যাবে সরকার কিছুই করতে পারেনি। তবে সে সময়ে সরকার এর মধ্যে কিঞ্চিত জড়িয়ে পড়েছিল। তাতে কি ঘটেছিল সেটা খুব পরিষ্কার। ইবোলা মহামারির পরে ওবামা স্বীকার করেছিলেন যে বেশ কিছু সমস্যা রয়েছে। আমাদের কিছু করা প্রয়োজন।

ওবামা কিছু কাজ করেছিলেন। তার মধ্যে একটি হলো তিনি ভেন্টিলেটরের কেনার জন্য চুক্তি করার চেষ্টা করেছিলেন। ভেন্টিলেটরগুলো হলো বর্তমান ব্যবস্থায় সরু বোতলের গলা। যে ব্যবস্থাটা কিনা নার্সদের বাধ্য করেছে  আগামীকাল কাকে হত্যা করা হবে, তা নির্ধারণ করতে। চাহিদা মেটানোর জন্য যথেষ্ট না হলেও ওবামা প্রশাসন উচ্চ মানের এবং স্বল্প মূল্যের ভেন্টিলেটর প্রস্তুত করার জন্য একটি কোম্পানির সাথে চুক্তি করেছিল। খুব দ্রুতই সে কোম্পানিটিকে অপর একটি বৃহৎ কোম্পানি কিনে নেয় এবং উক্ত চুক্তিটিকে একপাশে সরিয়ে রাখে। তারা বাজারে তাদের উচ্চমূল্যের ভেন্টিলেটরগুলো নিয়ে প্রতিযোগিতা করছিল। পরবর্তী সময়ে তারা সরকারকে বলে দেয় যে তারা এই চুক্তি থেকে বের হয়ে যেতে চায়। কারণ সেটি তাদের জন্য যথেষ্ট লাভজনক নয়।

এটি হলো বর্বর পুঁজিবাদ। স্রেফ পুঁজিবাদ নয়, নয়া-উদারবাদী পুঁজিবাদ। এটি ব্যাপক নষ্টামির দিকে যাচ্ছে। জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারিতে যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা বিভাগ যখন হোয়াইট হাউজের দরোজায় হানা দিয়ে বলল, ‘শুনুন! একটি সত্যিকারের সংকট ঘনিয়ে আসছে। কিছু একটা করুন!’ তারা কিছু করতে পারেনি। তবে ট্রাম্প প্রশাসন কিছু একটা করেছিল। বলতে গেলে তারা বাণিজ্যে ভারসাম্য আনার উদ্দেশ্যে চীন এবং অন্যান্য দেশগুলোতে ভেন্টিলেটর রপ্তানি করেছিল। মার্চেও তারা রপ্তানি কার্যক্রম অব্যাহত রেখেছিল।

এখন যে সকল প্রস্তুতকারক এবং বহনকারী প্রতিষ্ঠানগুলো সেসব ভেন্টিলেটর তৈরি এবং সেগুলোকে প্রেরণ করেছিল, তারাই আবার সেগুলো ফেরত আনছে; দ্বিগুণ লাভ। আমরা ঠিক এর সাথেই বসবাস করছি। এই ধরনের কার্যক্রম খুব সহজেই চলতে থাকবে। সুতরাং আপনি যদি পুরো বিষয়টিকে পুনরায় বিবেচনা করে দেখেন, তাহলে বুঝবেন এর মূলে আছে বাজারের এক প্রকাণ্ড ব্যর্থতা। সহজভাবে বললে বাজার কোনো কাজে আসে না। বিভিন্ন সময়ে এটি জুতা বিক্রির কাজে আসতে পারে। তবে কোনো গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ঘটলে বাজারের কিছু যায় আসে না। মিল্টন ফ্রিডম্যান এবং অন্যান্যরা যেমনটা বলেন, আপনাকে স্রেফ লোভের দ্বারা চালিত হতে হবে। আপনি শুধু নিজের কল্যাণ এবং সম্পদ অর্জনের জন্যেই কাজ করবেন। আর কোনো কিছু নিয়ে ভাবার প্রয়োজন নেই। এটি একটি নির্মিত দুর্যোগ। আমাদের এই ধরনের প্রচুর উদাহরণ রয়েছে এবং সেগুলোর আর পুনরুল্লেখ করার প্রয়োজন নেই। অতএব সবকিছুর শুরু হয় বাজারের ব্যর্থতা দিয়ে। তারপরেই আসে বর্বর পুঁজিবাদের অতিরিক্ত হাতুড়ির আঘাত, নয়া-উদারবাদ; যার কারণে পৃথিবীজুড়েই আমরা বিগত চার দশক ধরে ভোগান্তির শিকার হচ্ছি, যা কিনা এই ভেন্টিলেটর সংকটের চেয়েও ভয়াবহ।

যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালগুলোকে ব্যবসায়িক কাঠামো অনুসরণ করে চলতে হয়। সে কারণে সেখানে কোনো অতিরিক্ত ধারণক্ষমতা থাকে না। এই কাঠামো স্বাভাবিক সময়েও কাজে আসে না। যে কেউ যুক্তরাষ্ট্রের সেরা হাসপাতালগুলোতে গিয়ে এর সত্যতা যাচাই করতে পারেন। যাই হোক, যদি কোনো উল্টাপাল্টা ঘটনা ঘটে, তাহলে আপনি ডুবেছেন। আপনার কপাল খারাপ। সম্ভবত এই কাঠামো গাড়ি প্রস্তুতকরণের ক্ষেত্রে কাজে আসে। তবে এটা স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে উপকারে আসে না। আমাদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ব্যবস্থা হলো একটি আন্তর্জাতিক কলঙ্ক। স্বাস্থ্যসেবার ব্যবসায়িক কাঠামোটি নিশ্চিতভাবেই একে নির্মিত দুর্যোগে পরিণত করে। বিষয়টা এমনই।

আরো এমন কিছু ঘটনা ঘটে চলেছে যেগুলো আমাদের আলোচনার জন্য একটু বেশিই পরাবাস্তব। ইউএসএআইডি বেশ কিছু কর্মসূচীতে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছিল। যেমন তারা বিভিন্ন বন্যপ্রাণির শরীরে বেশ কিছু সম্ভাব্য রোগ তৈরিকারী ভাইরাস চিহ্নিত করেছিল। সে সব বন্যপ্রাণিগুলো তাদের বাসস্থান হারানোর ফলে এবং বৈশ্বিক উষ্ণায়নের কারণে মানুষের সংস্পর্শে আসার ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। তারা চীনেও কাজ করছিল। ট্রাম্প এসে এই প্রতিষ্ঠানটিকে বিলুপ্ত করে দিল। আগে থেকেই সে বাজেটে এর জন্য বরাদ্দ কমিয়ে আসছিল। গত বছরের অক্টোবরে দারুণ সময়মতো একে বানচাল করা হলো।

আমি এমন আরো অজস্র উদাহরণ দিতে পারি। কিন্তু আপনি ইতিমধ্যেই এর একটি চিত্র পেয়ে গিয়েছেন। হোয়াইট হাউজের একটি ধর্ষকামী সোশিওপ্যাথের দল নিদারুণ বাজার ব্যর্থতাকে প্রতিনিয়ত আরো বেশি তীব্রতর করে তুলছে। ধনকুবেররা  কিভাবে পরবর্তী পৃথিবী নির্মাণ করা যায় তা দেখার জন্য আর অপেক্ষা করছে না। তারা এর মধ্যেই কাজ শুরু করে দিয়েছে এবং এই পরিবর্তন যেন সঠিক পথে আসে তা নিশ্চিত করছে। জীবাশ্ম জ্বালানিতে আরো বেশি ভর্তুকি দেওয়া, মানুষের সুরক্ষা দেওয়ার উদ্দেশ্যে জারি করা এবং মুনাফার জন্যে ক্ষতিকর ইপিএ‘র শর্তগুলো ধ্বংস করার মতো ঘটনাগুলো আমাদের চোখের সামনেই ঘটে যাচ্ছে। প্রশ্ন হলো এর বিরুদ্ধে কি কেউ দাঁড়াবে না? যদি না দাঁড়ায় তাহলে…

এই প্রবণতার বিরুদ্ধে গণআন্দোলন তৈরি এবং এর বিরুদ্ধে লড়াই করার তরিকা কী হবে, সে সংক্রান্ত আলোচনার পূর্বে বাজার ব্যর্থতার আলাপে আমি আরেকটি বিষয় যোগ করতে চাই সেটি হলো আমরা একইসাথে যুক্তরাষ্ট্রের প্রাতিষ্ঠানিক বর্ণবাদের উত্তরাধিকার হিসেবে মহামারির অসামঞ্জস্যপূর্ণ প্রভাব পড়তে দেখি কৃষ্ণাঙ্গ সম্প্রদাগুলোর উপর একে আমাদের কিভাবে বোঝা উচিত বলে আপনি মনে করেন?

চমস্কি: চার শতাব্দী আগে যখন প্রথম দাসদেরকে কেনা হয়েছিল, সে সময়ে ফিরে যাওয়ার মাধ্যমে আমরা এই পরিস্থিতিকে বুঝতে পারব। আমি পুরো ইতিহাসকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চাই না। তবে বলা যায়, মানবেতিহাসের সবচেয়ে নিকৃষ্ট দাসপ্রথাটি আসলে যুক্তরাষ্ট্রের সমৃদ্ধির মূল ভিত্তি, মূল ভিত্তির বৃহত্তর অংশ।

কার্পাস তুলা ছিল আঠারো এবং ‍ঊনিশ শতকের তেল। আপনাকে সস্তা দরে তুলা পেতেই হবে। তারা আপনাকে অর্থনীতি বিভাগে যা শিক্ষা দেয়, তা অনুসরণ করে আপনি এটা হাসিল করতে পারবেন না। আপনি এটা হাসিল করতে পারবেন দুষ্ট এবং বর্বর দাসপ্রথার মাধ্যমে। এর মাধ্যমেই কাপড় উৎপাদন, অর্থনীতি, বাণিজ্য এমনকি খুচরা ব্যবসায়ের ভিত্তি রচিত হয়েছিল। স্পষ্টতই ঊনবিংশ শতাব্দীর বেশিরভাগ সময় জুড়ে দাসপ্রথা অব্যাহত থাকে। শেষপর্যন্ত পুনর্গঠন যুগে দশ বছরের মধ্যে দাসপ্রথা আনুষ্ঠানিকভাবে নির্মূল করা হয়। তারপর দক্ষিণাঞ্চলের সাথে এমন একটি চুক্তি করা হয়, যার মাধ্যমে তারা যেমন ছিল তেমন অবস্থাতেই ফেরত চলে যায়। আপনি এই বিষয়ে লিখিত বইগুলোর মধ্যে সেরা একটি বই স্লেভারি বাই অ্যানাদার নেইম পড়লে জানতে পারবেন, কৃষ্ণাঙ্গ জনগোষ্ঠীকে প্রকৃত অর্থে অপরাধী প্রতিপন্ন করার জন্য কয়েকটি পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল। রাস্তায় এক কোনায় দাঁড়িয়ে থাকা কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তিটিকে উদ্দেশ্যবিহীন ঘুরে বেড়ানোর জন্য জরিমানা করা হলো। সে জরিমানার অর্থ পরিশোধ পারল না। সমস্যা নেই, তুমি দাসদের দলে যোগ দাও।

এর সর্বশেষ ফলাফল হলো ঊনিশ শতকের শেষ এবং বিশ শতকের শুরুর দিকে সংঘটিত মহান উৎপাদনী বিপ্লব। দাসপ্রথা বলা না হলেও এই বিপ্লবের একটি বিশাল অংশ কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি রাষ্ট্রীয় মালিকানার উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছিল। এটি দাসপ্রথার চেয়েও বেশি সুবিধাজনক। আপনার যদি দাস থাকে, তাহলে তাদেরকে আপনার নিজের প্রয়োজনেই জীবিত রাখতে হবে। আপনি তাদের কয়েদখানায় দিলে সরকারের দায়িত্ব হলো তাদেরকে জীবিত রাখা। আপনার নিজের প্রয়োজনমতো তাদেরকে পেয়ে যাবেন। এখানে নিয়মানুবর্তিতার অভাব, প্রতিবাদ বা এ জাতীয় কোনো ঝামেলা নেই। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পর্যন্ত এই ব্যবস্থা চলতে থাকে। সে সময়ে চাকরির অভাব ছিল না। মানুষকে কাজ করতে হতো।

তারপর দাসপ্রথা নতুন কাঠামোয় আবির্ভূত হয়। গত শতকের ষাটের দশকের শেষদিকে ফেডারেল আবাসন আইনে পৃথকীকরণ করার প্রয়োজন হয়। পঞ্চাশের দশকে বহু জনসমর্থিত আবাসনের কাজ চলতে থাকে। লেভিটটাউনস এবং এ ধরনের আরো  কাজ হয়, যদিও তার সবগুলোই শ্বেতাঙ্গদের জন্য, কৃষ্ণাঙ্গদের জন্য নয়। উদারবাদী সাংসদেরা একে ঘৃণা করলেও এর পক্ষে ভোট দেয়, কারণ কোনো প্রকার গণআবাসন আইন পাশ করানোর আর কোনো উপায় ছিল না।

আর্টওয়ার্ক: ব্ল্যাকম্যান
শিল্পী: শেলি ব্রান্টলি
সূত্র: ফাইনআর্ট আমেরিকা

ষাটের দশকের যুক্তরাষ্ট্রে এমন কিছু বিকট বর্ণবাদী আইন ছিল যেগুলো নাৎসিরা পর্যন্ত গ্রহণ করেনি। তারপর এটি অন্য কাঠামো নেয়। সে সময় সুপ্রিম কোর্ট শেষপর্যন্ত পুনর্গঠনের সময়ের সরকারের মতো ঘোষণা দেয়, দক্ষিণের রাজ্যগুলো মূলত যা চায় তা করতে পারবে। তারা নির্বাচনী অধিকার আইনকে বাতিল ঘোষণা করল। কয়েকদিন আগে উইসকনসিনে আমরা এমন একটি ঘটনা দেখতে পেলাম। অবিশ্বাস্য! আপনি যদি গণতন্ত্রের পরিষ্কার পতনের ঘটনা দেখতে চান, তাহলে দুইদিন আগে (৮ই এপ্রিল) উইসকনসিনে যা ঘটেছে, তার দিকে নজর বোলাতে পারেন।

সেখানকার গণতান্ত্রিকভাবে নির্বাচিত রাজ্যপাল চেয়েছিলেন এই সংকটের মধ্যে প্রাথমিকভাবে নির্বাচনের আগে আরেকটু বেশি সময় নিয়ে শারিরীকভাবে অনুপস্থিত থেকেও ভোট দেওয়ার ব্যবস্থা চালু করতে। এরচেয়ে যৌক্তিক কোনো সমাধান আর হয় না। সেখানকার রিপাবলিকান প্রভাবিত আইনসভা খুব অল্পসংখ্যক ভোট পেয়েও কূটকৌশলে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন বাগিয়ে নিয়েছিল। তারা একটি অধিবেশন ডাকল। আমার মনে হয় না রিপাবলিকানরা লোকদেখানো অধিবেশন ডাকতেও আগ্রহী ছিল। সংখ্যাগরিষ্ঠ নেতৃবৃন্দরা স্রেফ অধিবেশন ডেকেছে এবং বন্ধ করেছে। রাজ্যপালের সুপ্রিম কোর্ট সমর্থিত প্রস্তাবনাকে তারা গ্রাহ্যই করেনি।

অধিকাংশ ডেমোক্র্যাট সমর্থক সংখ্যালঘু দরিদ্র জনগোষ্ঠী, যারা কিনা এই ভোট দিতে পারছে না, তারা যাতে ভোট না দেয় তা নিশ্চিত করতেই এই ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই ব্যবস্থা যারা করেছে, তাদের ঐতিহ্যবাহী ধনী সমর্থকেরাই শুধু ভোট দেবে। তারা এমনকি গোপনেও নয়, প্রকাশ্যেই এমন একটি রাস্তা বেছে নিয়েছে, যার মাধ্যমে তারা এমন একটি বিষয় নিশ্চিত করতে চাচ্ছে যে, জনগণ যা-ই চাক, সবচেয়ে প্রতিক্রিয়াশীল নীতিগুলো সবসময় বলবৎ থাকবে।

মিক ম্যাককননেল (সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠের নেতা) হলেন এসব কিছুর পেছনের মূল হোতা। তিনি এই পর্যন্ত সুন্দরভাবে কাজটি করে যাচ্ছেন। বিচার বিভাগে যাতে অধিকাংশ অনুপযুক্ত এবং তীব্র প্রতিক্রিয়াশীল তরুণেরা নিয়োগ পায়, তিনি এ বিষয়টি নিশ্চিত করছেন। এর মাধ্যমে এটি নিশ্চিত করা হচ্ছে যে, ‍ভবিষ্যতে দেশের প্রয়োজনগুলো যাতে তারা নিমেষেই হত্যা করতে পারেন। ররার্টস কোর্টের মতো সংখ্যাগরিষ্ঠরা বর্তমানে এই কাজ করতে সক্ষম। রিপাবলিকানরা জানে যে তারা সংখ্যালঘুদের দল। তারা জানে যে তাদের আসল কর্মসূচীর মাধ্যমে ভোট পাওয়ার কোনো উপায় নাই। সে কারণেই তারা বন্দুক অধিকার, গর্ভপাতের মতো তথাকথিত সাংস্কৃতিক বিতর্কগুলোকে উসকিয়ে দেয়। এগুলো তাদের আসল নীতি নয়। তাদের আসল নীতিতে ধনীদের পকেট ভর্তি হয়। ট্রাম্প এই লাইনে সিদ্ধহস্ত। তার প্রশংসা করতেই হয়। এক হাতে তিনি লিখে নিয়ে দাঁড়ান, ‘আমি তোমার রক্ষাকর্তা। আমি দরিদ্র শ্রমিকটির জন্য কাজ করে যাচ্ছি।’ আরেক হাত দিয়ে তিনি তার পেছনে ছুরিকাঘাত করেন। বিষয়টি দারুণ চিত্তাকর্ষক। তিনি নিশ্চিতভাবেই এই পর্যন্ত আমেরিকার ইতিহাসের সবচেয়ে সফল প্রতারক।

আমি অনুমান করেছিলাম, এটা কখনো বিস্ফোরিত হবে। তবে এ পর্যন্ত তারা সামলে নিয়েছে। তারা সেখানকার গণতন্ত্রের যা কিছু উপাদান অবশিষ্ট রয়েছে সেগুলোকে উলঙ্গ করে ফেলার জন্য ব্যাপক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এর নমুনা আছে অন্য কোথাও। তাদের খুব ভালো বন্ধুদের একজন (প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর) ওরবান হাঙ্গেরিতে একই কাজ করছে। আসলে বিষয়টি খুব আগ্রহ জাগানিয়া, হোয়াইট হাউজের বিশৃঙ্খলার মধ্যে সেখানকার সংলগ্ন ভূ-রাজনৈতিক কৌশল আবিষ্কার করা কঠিন কাজ। তবে একটি বিষয় বিলক্ষণ বোঝা যায়: পৃথিবীজুড়ে যাবতীয় প্রতিক্রিয়াশীল রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে একটি আন্তঃর্জাতিক সহায়তা গড়ে তুলে তাকে যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতার ভিত্তিতে পরিণত করার প্রচেষ্টা।

মিসরের ইতিহাসের সবচেয়ে নিকৃষ্ট অত্যাচারী শাসক হলো (রাষ্ট্রপতি আবদেল ফাত্তাহ্ এল) সিসি। সৌদি আরবের পারিবারিক স্বৈরশাসকদের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ খুনি হলো এমবিএস (ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান আল সৌদ)। ক্রমেই ডানদিকে ঝুঁকে পড়া ইসরায়েল এই বিশেষ আন্তঃর্জাতিকের কেন্দ্রে অবস্থান করছে। ইসরায়েল এবং আরব রাষ্ট্রগুলোর সাথে বিগত কৌশলগত সম্পর্কগুলো ক্রমেই প্রকাশ্যে আসছে। ভারতের (প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র) মোদী যা করছে তা বলার মতো নয়। তিনি সম্পূর্ণ লকডাউনের জন্য চার ঘন্টার নোটিশ দিয়েছিলেন। ভারতের বেশিরভাগ মানুষ হলো অস্থায়ী শ্রমিক। তাদের কোথাও যাওয়ার জায়গা নেই। তারা বাড়িতেও থাকতে পারে না। তাদের কোনো বাড়ি নেই। সুতরাং তারা রাজপথে বেরিয়ে পড়ল। তাদের গন্তব্য হয়তো হাজার মাইল দূরের কোনো গ্রাম। তারা রাস্তায় মরে পড়ে থাকল। এটা আসলে কী করতে চাচ্ছে তা কল্পনা করা অসম্ভব। কিন্তু তারা যেহেতু দরিদ্র এবং তাদের মধ্যে বেশিরভাগই যেহেতু মুসলিম, সুতরাং কার কী আসে যায়? অতএব মোদী এই প্রতিক্রিয়াশীল আন্তঃর্জাতিকের একটি বড় জায়গা জুড়ে আছে। হাঙ্গেরির ওরবানের মতো ভালো মানুষেরা তাকে ভালোবাসে।

সূত্র: ভারাতব্লগ

ইতালির (সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী মাত্তিও) সালভিনি ছিলেন সে অঞ্চলের কুখ্যাত দুর্বৃত্ত নেতা। পশ্চিম গোলার্ধের প্রধানতম প্রতিনিধি ব্রাজিলের (রাষ্ট্রপতি জাইর) বলসোনারো ট্রাম্পের সাথে পৃথিবীর সবচেয়ে কুখ্যাত অপরাধী হওয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছেন। যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষমতা ব্যবহার করে ট্রাম্প এই প্রতিযোগিতায় অনায়াসে জিতে যাবেন। কিন্তু বলসোনারোর নীতি খুব বেশি আলাদা কিছু নয়। যার ফলে শুধু ব্রাজিল নয় বরং পুরো পৃথিবী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিজ্ঞান বিষয়ক পত্রিকাগুলো ভবিষ্যদ্বাণী করেছে, আগামী পনেরো বছরের মধ্যে আমাজন বন সর্ব্বোচ্চ কার্বন বিনষ্টকারী থেকে সর্ব্বোচ্চ কার্বন-ডাই-অক্সাইড নির্গমনকারী এলাকায় ‍পরিণত হবে। এটি একটি বিপর্যয়। এগুলো হলো বলসোনারোর তরফ থেকে খনি শিল্প, কৃষিবাণিজ্য এবং তার সকল বন্ধুদেরকে দেওয়া উপহারের ফল। সুতরাং এই লোকগুলো পরবর্তী পৃথিবী তৈরি করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তারা কঠোর পরিশ্রম করছে। তারা বরাবরই তাই করে। তাদের নিরন্তর অবিরাম শ্রেণিযুদ্ধ কখনো থেমে থাকে না। তারা যদি জিতে যায়, তাহলে আমরা তাদের খাদ্য হব।

এই সীমারেখাগুলো ছাড়াও আপনি বলেছিলেন যে ব্যবসাবাণিজ্য সংক্রান্ত সংবাদপত্রগুলো খুব কাজে আসতে পারে তাদের কর্মকান্ড, পরিকল্পনা এবং পৃথিবীকে তারা কীভাবে দেখে এই সংক্রান্ত ব্যাপারে তারা প্রায়ই খোলামেলা কথা বলে আমাদের দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে বেশ কিছু গণ সম্পৃক্ততার ঘটনা খেয়াল করছি বিভিন্ন এলাকায় ধর্মঘট পালিত হচ্ছে করোনা ভাইরাসের প্রতিক্রিয়ায় শ্রমিকেরা সংগঠিত হচ্ছে এবং তাদেরকে অনিরাপদ পরিবেশে কাজ করার জন্য প্ররোচিত করা হচ্ছে নিয়োগকর্তারা কি বিষয়ে কথা বলছেন এবং তারা কি এই পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বিগ্ন?

চমস্কি:  আসলেই কি তারা উদ্বিগ্ন? আপনি জানেন নিশ্চয়, প্রতি জানুয়ারি মাসে এই স্বঘোষিত মহাবিশ্বের প্রভুরা সুইজারল্যান্ডের ডেভোসে একত্রিত হয়ে স্কাইং করে এবং তারা কতোটা অসাধারণ ইত্যাদি ইত্যাদি এইসব বিষয়ে আলাপ-আলোচনা করে। এই বছরের জানুয়ারি মাসের সভাটি বেশ আগ্রহোদ্দীপক ছিল। কৃষকেরা কাটাচামচ হাতে নিয়ে আসছে দেখে তাদেরকে বেশ চিন্তিত মনে হলো। তাতে একটি পরিবর্তন ঘটল। আপনি আলোচনা সভার মূল বিষয়ের দিকে খেয়াল করলে দেখতে পাবেন, তাদের ভাবটা এমন, ‘হ্যাঁ আমরা অতীতে কিছু খারাপ কাজ করেছি। আমরা এখন নিজেদের ভুল বুঝতে পেরেছি। আমরা পুঁজিবাদের ইতিহাসে একটি নতুন যুগ শুরু করতে যাচ্ছি, যেখানে আমরা শুধু লগ্নিকারকদের স্বার্থ নিয়েই সচেতন নই, আমরা শ্রমিক এবং জনগণের স্বার্থ নিয়েও ভাবব। আমরা লোক হিসেবে এতো ভাল এবং মানবিক যে আপনারা আমাদের উপর নিশ্চিন্তে বিশ্বাস স্থাপন করতে পারেন। আমরা নিশ্চিত করব যে সবকিছু ঠিকঠাক আছে।’

যা ঘটেছে সেটা দারুণ চিত্তাকর্ষক ছিল। প্রধান বক্তা ছিলেন দুইজন। এই নাটকটি দেশের সকল বিদ্যালয়ে মঞ্চস্থ হওয়া উচিত। দুজনের মধ্যে বরাবরের মতোই ট্রাম্প মূল বক্তব্য দিয়েছেন। অপর বক্তব্যটি দিয়েছেন গ্রিতা থুনবার্গ। এই দুয়ের বৈপরীত্যটি ছিল চমৎকার। প্রথম বক্তব্যটি ছিল সেই প্রলাপ বকা ভাঁড়টির, সে কতটা লোভী সেটা প্রমাণ করতে উচ্চস্বরে চেঁচাচ্ছিল এবং আমরা তার মিথ্যার সংখ্যাটাও গণনা করে কুলিয়ে উঠতে পারি নি। দ্বিতীয় বক্তব্যটি ছিল একজন সতেরো বছর বয়সী বালিকার। পৃথিবীতে যা ঘটে চলেছে তার যথাযথ তথ্যনির্ভর বিবরণ সে চুপচাপ দিয়ে যাচ্ছিল। ওইসব লোকের মুখের উপর তাকিয়ে বলেছিল, ‘আপনারা আমাদের জীবন ধ্বংস করছেন।’ এবং অবশ্যই সবাই ভদ্রভাবে তালি দিয়েছিল। সুন্দর বাচ্চা মেয়ে। ইস্কুলে ফিরে যাও।

ট্রাম্পের ব্যাপারে তাদের প্রতিক্রিয়া ছিল বিশেষভাবে আগ্রহোদ্দীপক। তারা তাকে পছন্দ করেনি। তাদের নিজেদের তৈরি করা আপ্রাণ মানবতাবাদী মুখাবয়বের মধ্যে ট্রাম্পের অশিষ্টতা এবং স্থূলতা ঢুকে তার ব্যাঘাত ঘটাচ্ছিল। তারপরেও তারা তাকে ভালোবাসে। তারা তাকে দাঁড়িয়ে সাধুবাদ জানায় এবং হর্ষধ্বনি দেয়। কারণ তারা কিছু বিষয় বোঝে। এই লোক যতোই অশোভন হোক না কেন, সে জানে কার পকেট ভরতে হবে এবং কিভাবে তা ভরতে হবে। তাতে হতে পারে সে এক আপাদমস্তক ভাঁড়। আমরা তার উদ্ভট হাবভাব সহ্য করব যতক্ষণ পর্যন্ত সে আমাদের সুবিধাজনক নীতির ওপর চালিত হয়। এই হলো ডেভসের ভদ্রমহোদয়গণ!

আমরা এই সুর পূর্বেও শুনেছি তা নির্দেশ করতেও তারা ভোলে না। ১৯৫০ এর দশকে একে বলা হতো তুরীয় কর্পোরেশন। কর্পোরেশনগুলো তুরীয় হয়ে উঠেছিল। তারা এখন শ্রমিক শ্রেণি এবং বাকি সবার জন্যেই দয়ার সাগরে ভাসছে। এটি একটি নতুন যুগ। অবশ্য তারা কতোটা তুরীয় ছিল তা দেখার জন্য আমাদের হাতে কিছু সময় আছে। এবং এই জিনিস চলমান থাকবে।

আর্টওয়ার্ক: এন্ড প্রোভার্টি, উইন পিস
শিল্পী: মাখমুদ এশোনখলভ
সূত্র: কার্টুন মুভমেন্ট

সুতরাং হয় আমরা এই প্রতারকের হস্তগত হয়ে গিয়ে যা চলছে তা চলতে দিতে পারি, অথবা আপনারা ঘুরে দাঁড়িয়ে আলাদা একটি পৃথিবী নির্মাণ করতে পারেন। পরবর্তী কাজটি করার জন্য এটিই সবচেয়ে ভালো সুযোগ এবং এখনই উপযুক্ত সময়। আপনি পুরো পৃথিবীজুড়ে চলা প্রতিবাদ ও ধর্মঘট পালনের কথা বলছিলেন। সম্প্রদায়গুলোর মধ্যে আত্ম-সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন দল গড়ে উঠছে। দরিদ্র প্রতিবেশিরা নিজেদের মধ্যে সহযোগিতার সম্পর্ক গড়ে তুলছে এবং সম্প্রদায়ের মধ্যে বেকায়দায় পড়া বৃদ্ধদের জন্য কিছু করতে চাইছে। তাদের মধ্যে কিছু মানুষকে দেখলে স্তম্ভিত হয়ে যেতে হয়।

ব্রাজিলের দিকে তাকান। সেখানকার রাষ্ট্রপতি স্রেফ একটা বিকটাকার জন্তু। তার কাছে এই পুরো মহামারি শুধুমাত্র একটা শীতকাল। ব্রাজিলিয়ানরা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত। আমরা বিশেষ মানুষ ইত্যাদি ইত্যাদি। সরকার কিছুই করছে না। কতিপয় রাজ্যপাল কিছু একটা করার চেষ্টা করলেও কেন্দ্রীয় সরকার কিছুই করছে না। অন্যান্য জায়গার মতো সবচেয়ে খারাপ অবস্থা হবে বস্তি, দরিদ্র এলাকা এবং আদিবাসী প্রধান এলাকাগুলোতে। রিয়ো শহরের ফাভেলাসের মতো বস্তিগুলোতে কয়েক ঘন্টা পরপর হাত ধোয়া একটু কঠিন। সেখানে পানির কোনো ব্যবস্থাই নেই। তাছাড়া সেখানে নিজেকে আলাদা রাখাটাও কঠিন। আপনাকে একটি ঘরেই গাদাগাদি করে থাকতে হয়। তবে এই ভয়াবহ পরিস্থিতির মধ্যেও একটি দল এসে কিছু যৌক্তিক পদক্ষেপ নিয়ে যতদূর সম্ভব তাদের জীবনমান উন্নয়নের চেষ্টা করেছে। তারা কারা? তারা হলো ফাভেলাসের মধ্যে ভীতি সঞ্চারকারী অপরাধী সংগঠনগুলো। তারা এতোটাই ক্ষমতাবান যে পুলিশেরাও সেখানে ভিড়তে ভয় পায়। তারা সংগঠিত হয়ে এই স্বাস্থ্যগত দুর্যোগ মোকাবিলার চেষ্টা করছে।

এটি নার্সদের সম্মুখভাগে থেকে লড়াই করার কথা মনে করিয়ে দেয়। সাহায্যের মানবিক উপায় আমাদের মাঝেই হাজির থাকে। কোনো অনাকাঙ্খিত জায়গাতেও এটি প্রকাশিত হতে পারে। কর্পোরেট খাত নয়, ধনকুবের ব্যক্তি, তুরীয় কর্পোরেশন কিংবা নিশ্চিতভাবেই বিকারগ্রস্ত সরকারগুলো নয়, সাধারণ মানুষরা যেভাবে নিজেদের মধ্যে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে, এটাই আশা দেখাচ্ছে।

বার্নি স্যান্ডার্স তার ইস্তফা দেয়া বক্তব্যে এই বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তিনি বলেছিলেন, এই নির্বাচনী প্রচারণা হয়তো শেষ হচ্ছে, তবে আন্দোলন নয়। এটি এখন বিশেষভাবে তার তরুণ সমর্থকদের উপর নির্ভর করছে। তারাই এই আন্দোলনকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে এবং সফলতার মুখ দেখতে পারে। তাতে যাই ঘটুক না কেন। ট্রাম্প পুনর্নির্বাচিত হলে তা হবে এক চূড়ান্ত ট্র্যাজেডি। বাইডেন জিতলেও খুব বেশি ভালো কিছু হবে না। তবে যাই হোক, আপনার কিছু না কিছু করার আছেই এবং তা এখনো আমাদের এখতিয়ারের বাইরে যায়নি।

কোয়ারেন্টাইন শেষ হলে মানুষজন তাদের পরিবর্তিত না অক্ষত রাজনৈতিক মতামত সমেত বাসা থেকে বের হবে বলে আপনার মনে হয়?

চমস্কি: দেখা যাক কী হয়। তবে আমরা যেসব বিষয় নিয়ে আলাপ করছি, সেগুলোর ব্যাপারে আলোকপাত করার নিশ্চিতভাবেই উপযুক্ত সময় এখন। আমরা এই পরিস্থিতির মধ্যে কেন পড়লাম? আমরা যা নিয়ে কথা বলছি, তার কোনো সারবত্তা নেই। এটি হলো ভাসাভাসা আলোচনা। এটি পরিমাণগত পদার্থবিদ্যা নয়। আরেকটু চিন্তা করুন। এটা খুবই পরিষ্কার। মানুষ হয়তো বিষয়গুলো নিয়ে চিন্তা করবে, কিংবা এরপরেও তারা সেই প্রতারকের দ্বারা সম্মোহিত থাকবে। আমি দরিদ্র শ্রমিকদের কাছে থেকে চিঠি পাই, ‘তোমরা অভিশপ্ত উদারবাদীরা যাবতীয় অভিবাসীদেরকে নিয়ে এসে আমাদের চাকরি চুরি করার বন্দোবস্ত করছ, আর ট্রাম্প আমাদেরকে বাঁচাচ্ছে।’ ঠিক আছে, হয়তো তাদের মতান্তর ঘটানো সম্ভব। কিন্তু সেটা খুব সহজ হবে না।

এই লোকগুলো সারাদিন টিভিতে ফক্স নিউজ চালায়। এটি হলো সেই প্রতিধ্বনি কক্ষ। আপনি যদি এই চ্যানেল মহাশূন্য থেকে দেখেন এবং বিরক্ত না হয়ে ভাবেন, হচ্ছেটা কী? হোয়াইট হাউজের এই উন্মাদটা এসে যা ইচ্ছা তাই বলে যায়। পরের দিন বলে উল্টো কথা। ফক্সের প্রতিধ্বনি কক্ষে খুব উৎসাহের সাথে তার প্রতিধ্বনি করা হয়। পরের দিন আবার উল্টো কথা বলে এবং একই ঘটনা অব্যাহতভাবে চলতে থাকে। ইতিমধ্যেই তিনি প্রত্যেকদিন সকালে ফক্স নিউজ দেখে ঠিক করেন তার সেদিন কী বলা উচিত। এটি হলো তার তথ্য ও খবরাখবর সংগ্রহের উৎস। তারপর আপনি মাইক পম্পেও’র মতো বুদ্ধিমান মানুষদেরকে বলতে শোনেন, ‘ঈশ্বর ট্রাম্পকে পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন ইসরায়েলকে ইরানের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য।’ এই হলো সেই বিবেচক ব্যক্তিটি। আমাদের সামনে প্রহসন পরিবেশন করা হচ্ছিল। ধরা যাক, ঈশ্বর হয়তো আছেন। তার মনে হলো, তিনি জগৎ সৃষ্টির ষষ্ঠতম দিনে এসে একটি বাজে রকমের ভুল করে ফেলেছেন। এখন তিনি কৌতুকচ্ছলে সেই ভুল সংশোধন করতে যাচ্ছেন। এই লোকগুলোকে নিজেদের ধ্বংস ডেকে নিয়ে আসতে দেখছি। আমার কাছে তেমনটাই মনে হয়।

সমস্ত বাজার ব্যর্থতাগুলো চিহ্নিত করার মাধ্যমে এবং আপনি যখন সম্পদ সংগ্রহের উপায়গুলোর মধ্যে সম্বন্বয়ের বদলে সেগুলোর জন্য প্রতিযোগিতায় নামছেন, তার ফলে যে জটিলতা ঘাটতির সৃষ্টি হয় তা চিহ্নিত করার মাধ্যমে কি যুক্তরাষ্ট্র সংহতির সংস্কৃতি গড়ে তুলতে পারবে এবং এর মধ্যে থেকে সেখানে শ্রমিক শ্রেণির রাজনীতি সৃষ্টি হওয়ার মতো কোনো সম্ভাবনা রয়েছে কি, যেমনটা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর যুক্তরাজ্যে ঘটেছিল? হয়তো এর মধ্যে দিয়ে এনএইচএসের মতো সংগঠন তৈরি করা সম্ভব হবে যুক্তরাষ্ট্রের এই রাস্তায় এগোনোর কোনো সুযোগ রয়েছে কি?   

চমস্কি: অবশ্যই। আমরা পূর্বেও তা করেছি। আমি মহামন্দার সময় জুড়ে বেঁচেছিলাম। আমার এই লম্বা সাদা দাড়ি সেটারই সাক্ষ্য দেয়। ১৯২০ এর দশকে শ্রমিক আন্দোলন পুরোপুরি মুখ থুবড়ে পড়েছিল। শ্রমিক আন্দোলনের ইতিহাসবিদ ডেভিড মন্টগোমারির সেরা বই দ্য ফল অব দ্য হাউজ অব লেবার এর কথা মনে করুন। তিনি বিশ শতকের আলাপ করছেন। এই আন্দোলনের পতন ঘটায় উইলসনের উদারনীতিবাদী প্রশাসন, লাল ভীতি এবং বাকি যা কিছু ছিল। ত্রিশের দশকে এটি পুনরুজ্জীবিত হতে শুরু করে। সিআইও ‘সিট ডাউন’ ধর্মঘটের ডাক দেয়। শ্রমিকেরা সেখানে বসে থাকে। ব্যবস্থাপকদের জন্য সেটি হুমকি হয়ে দাঁড়ায়। পরবর্তী যে চিন্তাটি তাদের মাথার মধ্যে আসতে যাচ্ছে সেটা হলো, ‘আমাদের কোনো কর্তার প্রয়োজন নেই। আমরা নিজেরাই এটি পরিচালনা করতে পারব।’ ব্যাস, হয়ে গেল। এই ব্যবস্থাটি দারুন ভঙ্গুর। অবশ্য এর পরে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছিল। ঘটনাক্রমে সেখানে একটি সহানুভূতিশীল প্রশাসন ছিল, যা ছিল সংকটপূর্ণ। খুব ভালো একজন শ্রমিক আন্দোলনের ইতিহাসবিদ এরিক লুমিস এই ঘটনার একের পর এক দৃষ্টান্ত বিশ্লেষণ করে দেখিয়েছেন, ইতিবাচক পরিবর্তনের মূহুর্তগুলোতে সবসময় একটি সক্রিয় শ্রমিক আন্দোলন নেতৃত্ব দেয় এবং তারা তাতে সফল হয় যখন তুলনামূলক সহানুভূতিশীল বা কমপক্ষে সহিষ্ণু কোনো প্রশাসন বিরাজ করে।

আর্টওয়ার্ক: অস্টিং দ্য ডিকটেটর
শিল্পী: এনরিকো বার্তুসসিোলি
সূত্র: পলিটিক্যাল কার্টুন

এখন হয়তো সেটা নাই। কিন্তু বাইডেন যদি ক্ষমতায় আসে, তাতে খুব ভালো না হলেও তাকে চাপ দেওয়া যাবে। ত্রিশের দশকের মতো যদি শ্রমিক আন্দোলন পুনরুজ্জীবিত হয়, তাহলে আমরা আবারো পুঁজিবাদী সংকট থেকে পরিত্রাণ পাবো। বার্নি স্যান্ডার্স এই দিক দিয়ে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছেন। এটি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ।

নতুন চুক্তি মন্দা থেকে উত্তোরণ ঘটায় নি। যুদ্ধ ‍ঘটিয়েছিল। যুদ্ধের কারণে রাষ্ট্র সরাসরি উৎপাদনে হস্তক্ষেপ করেছিল। তবুও এটি আজকের দিনের চেয়ে অনেক বেশি ভালো ছিল। বয়সে বৃদ্ধ হওয়ার কারণে আমি সেটা এখনো স্মরণ করতে পারি। আমার বৃহৎ পরিবারের বড় একটি অংশই ছিল তখনকার প্রথম প্রজন্মের বেকার শ্রমিক। তারা আজকের দিনের শ্রমিকদের চেয়েও চরম নিকৃষ্ট পরিবেশে নিদারুণ অভাবের মধ্যে বসবাস করত। তবে সেখানে আশা ছিল। হতাশা দীর্ঘস্থায়ী ছিল না। পৃথিবী ফুরিয়ে আসছে এমন কোনো অনুভূতি ছিল না সেখানে। মেজাজটা এমন ছিল যে, ‘যেভাবেই হোক আমরা একসাথে কাজ করে এই সংকট উতরে যাব।’ তাদের কেউ কেউ কমিউনিস্ট পার্টি করতেন, কেউ ছিলেন শ্রমিক সংঘের সদস্য। আমার কয়েকজন বেকার নারী-দর্জি আন্টি ছিলেন, যারা আইএলজিডব্লিউই-এর (আন্তঃর্জাতিক নারী গার্মেন্টস শ্রমিক সঙ্ঘ) সদস্য ছিলেন। সেটি তাদেরকে একটি সাংস্কৃতিক জীবন দিয়েছিল। তারা সভা-সমাবেশ করতেন, গ্রামে একটা সপ্তাহ কাটিয়ে আসতেন, থিয়েটারে নাটক মঞ্চস্থ করতেন।

আমরা কিছু একটা করতে পারি। আমরা একসাথে আছি। এই পরিস্থিতি থেকে আমরা বের হয়ে আসব। শ্রমিক আন্দোলন হয়তো আবার পুনরুজ্জীবিত হবে।

জাকির হোসেন

জাকির হোসেন

জাকির হোসেন

জাকির হোসেন